ঢাকা,
মেনু |||

রাজাকারের তালিকায় মুক্তিযোদ্ধা! ‘পাক বাহিনীর ভুল’ বললেন মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

বিতর্ক চলছে সরকার ঘোষিত রাজাকারের তালিকা নিয়ে। অনেক মুক্তিযোদ্ধার নাম উঠে আসায় ক্ষোভ বিরাজ করছে ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবার সদস্যদের মাঝে।

এনিয়ে সমালোচনার মধ্যে মুখ খুললেন তালিকা প্রকাশকারী মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এই তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম থাকাটা পাকিস্তান বাহিনীর ভুল বলে দাবি করেন তিনি।

মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা নিজেরা কোনও তালিকা প্রস্তুত করিনি। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিরা যে তালিকা করেছে, আমরা শুধু তা প্রকাশ করেছি। সেখানে কার নাম আছে, আর কার নাম নেই সেটা আমরা বলতে পারব না।’

তাঁর দাবি, ‘একই নাম অনেকের থাকতে পারে। যারা চিহ্নিত মুক্তিযোদ্ধা তারা কেন তালিকাভুক্ত হবেন? সরকারি নথিতে যাদের তালিকা পাওয়া গেছে তাদের নামই বলা হয়েছে, নতুন করে কাউকে নথিভুক্ত করা হয়নি। তাই মুক্তিযোদ্ধার নাম এই তালিকায় আসার কথা না, আর যদি আসেও সেটা পাক বাহিনীর ভুল।’

এর আগে রবিবার (১৫ ডিসেম্বর) সংবাদ সম্মেলন করে প্রথম ধাপে ১০ হাজার ৭৮৯ জন রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। যাচাই-বাছাই করে ধাপে ধাপে আরও তালিকা প্রকাশ করা হবে।

এই তালিকায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কৌঁসুলি গোলাম আরিফ টিপু, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম, অ্যাডভোকেট মহসিন আলী, বাসদ বরিশাল জেলার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তীর বাবা তপন কুমার চক্রবর্তী, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মিহির লাল দত্তসহ অনেকের নাম উঠে এসেছে।

তালিকা প্রকাশের পরই নানা বিতর্ক ছড়াচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি হওয়ার পরও রাজাকারের তালিকাভুক্ত হওয়ায় বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধার স্বজন ও সহযোদ্ধারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এটিকে চরম অসম্মান ও লজ্জাজনক বলেও অভিহিত করেন তারা।


রিয়াজ পাটওয়ারী

প্রধান ‍উপদেষ্টা: মো: ‍আবু তালেব মিয়া
প্রকাশক: মো: ‍ইনাম মাহমুদ
সম্পাদক : রিয়াজ পাটওয়ারী
যুগ্ম সম্পাদক: খান আব্বাস
প্রধান সম্পাদক: মো: কামরুল ইসলাম
সহ সম্পাদক: শরিফুল আলম সোহেল
নির্বাহী সম্পাদক: শাহাদাত তালুকদার
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: এম এইচ প্রিন্স
Desing & Developed BY Engineer BD Network