ঢাকা,
মেনু |||

মন চলে যায় কুকরি–মুকরিতে

এম লোকমান হোসেন, অতিথি প্রতিবেদক :
দ্বীপ কন্যা (Queens of Island ) খ্যাত ভোলা জেলার অনিন্দ্য সুন্দর এক দ্বীপ হল চর কুকরি মুকরি। শুরুর দিকে এ চরে কুকুর আর মেকুরের (বিড়াল) অধিপত্য এতই বেশি ছিল যে এর নামকরন করা হয় চর কুকরি মুকরি। নামটাতে কিছু একটা আছে, ‘গাঢ় মৌন আহবান’ জাতীয় কিছু, নেশার মত টানে।

 

চরকুকরী মুকরী ভ্রমণ
চর কুকরী মুকরী বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে অবস্থিত ভোলার দক্ষিণে অবস্থিত একটা ছোট দ্বীপ।সাগর-নদী-ম্যানগ্রোভ বনের সৌন্দর্য এক সাথে উপভোগ করতে চাইলে চর কুকরী মুকরীই সেরা জায়গা বলে মনে করি।এখানে বানর,হরিণ,শিয়াল,সাপ আরো অনেক কিছুই দেখতে পাবেন বনের ভিতরে যেতে পারলে।

 

চর কুকরি মুকরি ভ্রমণের উপযুক্ত সময়ঃ
শীতকালে চর কুকরি মুকরির আসল সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। আবার এখানে ক্যাম্পিং করার জন্য শীতকালেই উপযুক্ত সময়। বর্ষায় চরের অধিকাংশ অংশই ডুবন্ত থাকে তাই বর্ষাকালে চর কুকরি মুকরি ভ্রমণ না করাই শ্রেয়। চর কুকরি মুকরি ভ্রমণের জন্য নভেম্বর-মার্চ মাস সবচেয়ে উপযুক্ত সময়।

 

কিভাবে যাবেনঃ
চর কুকরি মুকরিতে যেতে নদী পথ হচ্ছে সবচেয়ে সহজ উপায়। নদী পথে যাতায়াতে খরচ ও শারীরিক কষ্ট কম হয়। ঢাকার সদরঘাট থেকে বেতুয়াঘাট, চরফ্যাসন গামী লঞ্চে উঠতে হবে। এই পথে তাসরিফ, কর্ণফুলী, ফারহান ইত্যাদি লঞ্চ নিয়মিত যাতায়াত করে। এসব লঞ্চের ডেকের ভাড়া ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা, সিঙ্গেল কেবিন ভাড়া ১০০০-১২০০ টাকা এবং ডাবল কেবিন ভাড়া নিতে ২০০০ থেকে ২২০০ টাকা লাগে। ঘাট থেকে ১০০ টাকা মোটর সাইকেল ভাড়া করে কিংবা ৪০ থেকে ৫০ টাকা ভাড়ায় টেম্পোতে চরে চরফ্যাশন সদরে এসে সেখান থেকে ৩০ টাকা বাস ভাড়া অথবা ১৫০ টাকা মোটর সাইকেল ভাড়ায় দক্ষিণ আইচা আসুন। দক্ষিন আইচা থেকে ১০ থেকে ১৫ টাকায় টাকায় টেম্পো বা মোটরসাইকেল ভাড়ায় চর কচ্ছপিয়া যেতে পারবেন। চর কচ্ছপিয়া থেকে ৫০ থেকে ৬০ টাকায় ট্রলারে চেপে অথবা অথবা ১৫০ টাকা ভাড়ায় স্পীডবোটে চেপে পৌঁছে যাবেন চর কুকরি-মুকরি। এছাড়া ট্রলার রিজার্ভ করেও যেতে পারবেন এক্ষেত্রে আপনাকে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা খরচ করতে হবে।

 

 

লঞ্চের টিকেট কাটতে সরাসরি নাম্বার সমূহে যোগাযোগ করুনঃ
ফারহানঃ ০১৭৯৮২৮৮৬৯২/ ০১৭৯৮২৮৮৬৯৩/০১৭৯৮২৮৮৬৯৪
কর্ণফূলীঃ ০১৭৯৮৫১৬৭২৬ / ০১৭৭৯৯৭২৬৪০
তাসরিফঃ ০১৭১২৩৯৩৮১২ / ০১৭৮২৪৭৬৩৭৯
কোথায় থাকবেন?
কুকরী-মুকরিতে হোমস্টে সার্ভিস চালু রয়েছে সেখানে থাকতে পারবেন। এছাড়া বন বিভাগের রেস্ট হাউসে অনুমতি নিয়ে রাত্রি যাপন করতে পারবেন। রেস্ট হাউজে থাকতে চাইলে আগেই জানিয়ে যাওয়া ভালো। রেস্ট হাউসের রুমগুলোর ভাড়া ২০০০-৫০০০ টাকা। হোম স্টের ক্ষেত্রে জন প্রতি ২৫০-৫০০ টাকা ভাড়ায় থাকতে পারবেন। হোম স্টে সার্ভিসের জন্য যোগাযোগের ফোন নম্বর- ০১৭৪৬৭৬৫৯৫৯, ০১৭১১৫৮০৬৮০

 

 

কোথায় খাবেনঃ
হোম স্টে তে থাকা এবং খাওযার সু-ব্যবস্থা রয়েছে। বন বিভাগের রেস্ট হাউস কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে উনারাই খাবারের ব্যবস্থা করে থাকেন ।

 

 

কোথায় ঘুরবেনঃ
কুকরি তে নারকেল বাগান, বিভিন্ন বিচ্ছিন্ন খালের মোহনায় রঙ্গিন নৌকায় চেপে প্রকৃতি ও প্রতিবেশ দর্শন যেখানে ভাগ্য ভালো হলে হরিণের দেখা পেয়ে যেতে পারেন। তারুয়া দ্বীপের লম্ব সমুদ্র সৈকতে স্থান ও রাতে সৈকত তীরবর্তী বনে ক্যাম্পিং করতে পারেন। এছাড়া সমুদ্রে মৎস্য আহরণ, ট্রেইল ট্রাকিং, সি ফুড উপভোগ সহ সোনারচর, শিবচর, মুজিব কেল্লা, মনুয়া বাজার, ওয়াচ টাওয়ার,চেয়ারম্যানের ঘের ও বড় একটা বনের মধ্য দিয়ে নতুন তৈরী রাস্তা।এখানে ঘুরতে হলে বাইকেই ঘুরতে হয়।আর কখনো কখনো নৌকায়।দু’টো দিন যদি শহরের কোলাহল ছেড়ে সাগর বেষ্টিত বন্য পরিবেশের হাতছানি পেতে চান তাহলে চরকুকরী মুকরী উল্লেখযোগ্য স্থান বলে বিবেচিত হবে।


admin

প্রধান ‍উপদেষ্টা: মো: ‍আবু তালেব মিয়া
প্রকাশক: মো: ‍ইনাম মাহমুদ
সম্পাদক : রিয়াজ পাটওয়ারী
যুগ্ম সম্পাদক: খান আব্বাস
প্রধান সম্পাদক: মো: কামরুল ইসলাম
সহ সম্পাদক: মো: মেহেদী হাসান
নির্বাহী সম্পাদক: শাহাদাত তালুকদার
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: এম এইচ প্রিন্স
Desing & Developed BY Engineer BD Network